আন্তর্জাতিক বুকার পুরস্কার, ২০২২  পেলেন ভারতীয় লেখক গীতাঞ্জলি শ্রী

আন্তর্জাতিক বুকার পুরস্কার, ২০২২  পেলেন ভারতীয় লেখক গীতাঞ্জলি শ্রী

ভারত ভাগের ওপর লেখা ‘টুম্ব অব স্যান্ড’  উপন্যাসের (অনূদিত) জন্য গীতাঞ্জলি শ্রী এই পুরস্কার পান।  উপন্যাসটি ‘৮০ বছরের বিধবা এক নারীর জীবনে দেশভাগের প্রভাব’ নিয়ে লেখা। হিন্দি ভাষায়  প্রথম বই হিসেবে এটি ৫০ হাজার পাউন্ড মূল্যমানের এই পুরস্কারের সংক্ষিপ্ত তালিকায় স্থান করে নেয়। অনূদিত সাহিত্য ধারার সেকশনে এই পুরশকারটি বান গীতাঞ্জলি।

এক প্রতিক্রিয়ায় গীতাঞ্জলি শ্রী বলেন, ‘কখনোই বুকারের স্বপ্ন দেখিনি, মনে হয়নি কখনও পেতে পারি। এটা বিশাল স্বীকৃতি। আমি বিস্মিত, আনন্দিত, সম্মানিত এবং আবেগ আক্রান্ত।’

পুরস্কার পাওয়ার পর এক বক্তব্যে গীতাঞ্জলি শ্রী বলেন, প্রথম হিন্দি বই হিসেবে এই পুরস্কার জয় আনন্দের। তিনি বলেন, ‘আমার এবং এই বইটির পেছনে রয়েছে হিন্দি এবং অন্যান্য দক্ষিণ এশীয় ভাষায় একটি সমৃদ্ধ এবং উঠতি-সাহিত্য ঐতিহ্য। এই ভাষার সেরা লেখকদের সম্পর্কে কিছু জানা গেলে বিশ্বসাহিত্য আরও সমৃদ্ধ হবে।’

বিচারক প্যানেলের চেয়ার হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন ফ্রাঙ্ক ওয়েন। তিনি জানান, প্যানেল তার উপন্যাসের ‘শক্তি, মর্মস্পর্শীতা এবং কৌতুকে” মুগ্ধ হয়েছে। তিনি বলেন, ‘এটি ভারত এবং দেশভাগের একটি আলোকিত উপন্যাস; তবে এর মন্ত্রমুগ্ধকর প্রাণবন্ততা এবং প্রচণ্ড মমতা তরুণ, বয়স্ক, নারী, পুরুষ, পরিবার সমৃদ্ধ একটি পুরা জাতিকে একটি বহু বিচিত্র প্রবণতার সামগ্রিকতায় পরিণত করেছে’। তিনি আরও বলেন, এরকম কোনও উপন্যাস তিনি আগে কখনও পড়েননি।

পুরস্কারের অর্থ গীতাঞ্জলি শ্রী এবং বইটির অনুবাদক যুক্তরাষ্ট্রভিত্তিক ডেইজি রকওয়েলের মধ্যে ভাগ করা হবে।

আন্তর্জাতিক বুকার পুরস্কার প্রতিবছর ইংরেজিতে অনুদিত এবং যুক্তরাজ্য কিংবা আয়ারল্যান্ড থেকে প্রকাশিত বইয়ের জন্য দেওয়া হয়।

উত্তরপ্রদেশের মনিপুরিতে জন্ম নেওয়া ৬৪ বছরের গীতাঞ্জলি শ্রী তিনটি উপন্যাস ছাড়াও বেশ কয়েকটি গল্প সংকলন লিখেছেন। যুক্তরাজ্য থেকে তার প্রথম প্রকাশিত বই ‘টুম্ব অব স্যান্ড’। ২০১৮ সালে বইটি প্রথমে হিন্দি ভাষায় ‘রেত সমাধি’ নামে প্রকাশিত হয়।

সূত্র: এনডিটিভি, বিবিসি

ছবি:
Abhi Sharma from India, CC BY 2.0, via Wikimedia Commons
R schein, CC BY-SA 3.0, via Wikimedia Commons

1 Comment

  1. ভালো লাগল ।

Leave a Reply